আইএসআই এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন জিয়া : খাদ্যমন্ত্রী

4

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ আয়োজিত শোক দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী কর্ণেল ফারুকও আইএসআই এর এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। জিয়াউর রহমানকে তার কর্মকাণ্ডের জন্য যুদ্ধের সময়ই সেক্টর কমান্ডার পদ থেকে সরানো হয়েছিল। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, তারেক রহমানের চরিত্রেও ভিন্ন কিছু নেই। তারা আইএসআই এর এজেন্ডাকে এগিয়ে নিচ্ছেন। এ জন্যই ১৯৭১, ১৯৭৫ ও ২০০৪ সালের হত্যাকাণ্ড একই সূত্রে গাঁথা। ২০০৪ সালের গ্রেনেড হামলা যদি শেখ হাসিনা নিহত হতেন, তবে ওই দিনটিতে তারেক জিয়াও জন্মদিন পালন করতেন। কামরুল ইসলাম বলেন, একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা কখনও স্বাধীনতার সাড়ে তিন বছরের মাথায় জাতির পিতাকে হত্যা করতে পারেন না। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার আদর্শ কখনো এমন হয় না। আমি একজন আইনজীবী হিসেবে জানি, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার সাক্ষীরা জবানবন্দি দিয়েছেন, যে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। তিনি ছিলেন মূল কুশীলব। তদন্তেও এসব ওঠে এসেছে। তিনি আরও বলেন, বিএনপিতে অনেক মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন, অনেক ভালো মানুষও আছেন। কিন্তু এই দলের মূল নেতৃত্বে রয়েছেন আইএসআই এর এজেন্টরা। এদের থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। এই নেতৃত্বকে ছুড়ে ফেলতে হবে। তবেই আপনাদের কান্না বন্ধ হবে। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, বিএনপি বাঙালি জাতিকে বার বার কাঁদিয়েছে, তাই তাদের নেতাদের চোখে অশ্রু মানায় না। অনুষ্ঠানে মহানগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Share.