গরু ব্যবসায়ীদের টাকা ছিনতাই, ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী আটক

11

খাগড়াছড়ি জেলার রামগড়ে গরু ব্যবসায়ীর কাছ থেকে প্রায় আড়াই লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে ছাত্রলীগের নেতাসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। ছিনতাইকৃত টাকা উদ্ধার ও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশের অভিযান এখনো চলছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে জালিয়াপাড়া রামগড় সড়কের পাইন্যাটিলা নামক স্থানে এ ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। সিএনজিচালিত অটোরিকশার গতি রোধ করে সাত-আটজন ছিনতাইকারী অস্ত্রের মুখে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দুই লাখ ৩১ হাজার টাকা ও একটি দামি মোবাইল ফোন সেট ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

পুলিশ জানায়, নোয়াখালী জেলার মাইজদীর পাঁচজন গরু ব্যবসায়ী বাচ্চু মিয়া, সোহাগ, কালু, ইউছুপ ও মঈন উদ্দিন বৃহস্পতিবার রাতে জেলার মাটিরাঙা থেকে সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশায় করে রামগড়ে আসার পথে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে। রামগড় জালিয়াপাড়া সড়কের পাইন্যাটিলা নামক নির্জন জঙ্গলঘেরা স্থানে আগে থেকে ছিনতাইকারীরা ওত পেতে থাকে। অটোরিকশা আটকে ছিনতাইকারীরা ব্যবসায়ীদের এলোপাতাড়ি মারধর করে এবং দেহ তল্লাশি করে দুজন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে দুই লাখ ৩১ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন সেট  ছিনিয়ে নিয়ে তিনটি মোটরসাইকেলে করে পালিয়ে যায়। অভিযোগ পেয়ে রামগড় থানার পুলিশ ছিনতাইকারীদের ধরতে অভিযান শুরু করে।

রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইন উদ্দিন খান জানান, পুলিশ প্রথমে রামগড় বাজার এলাকা থেকে পলাশ দত্ত, নাঈম মজুমদার ও শরীফ পাটোয়ারী নামে তিন যুবককে আটক করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মাটিরাঙা থেকে রুবেল ও গুইমারা থেকে অশোক কুমার দে নামে আরো দুজনকে আটক করা হয়। এদের মধ্যে রুবেল মাটিরাঙা পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং পলাশ দত্ত, নাঈম ও শরীফ ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সদস্য বলে জানা গেছে। আটক নাঈম ও পলাশ নিজেদের নির্দোষ দাবি করে বলেন, এ ঘটনায় তাদের ফাঁসানো হয়েছে।

ওসি মাইন উদ্দিন খান বলেন, ‘ছিনতাই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের আটক করতে এবং ছিনতাইকৃত টাকা উদ্ধারে তিনি পুলিশ ফোর্স নিয়ে এখনো অভিযান চালাচ্ছেন।’

Share.